সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ১২:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রূপপুর-বগুড়া গ্রিড লাইনে পরীক্ষামূলক বিদ্যুৎ সঞ্চালন শুরু ঈশ্বরদীতে চলতি মৌসুমে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৩.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস ঈশ্বরদীতে ইজিবাইক চালকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার ঈশ্বরদী বাজারে গ্রীল কেটে ও তালা ভেঙে চার দোকানে চুরি ঈশ্বরদীতে ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটে ক্ষুদ্ধ গ্রাহক “গ্রামে বিদ্যুৎ যায় না আসে” ঈশ্বরদীতে ট্রেনে কাটা পড়ে যুবকের মৃত্যু মাদার তেরেসা গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড পেলেন গোপাল অধিকারী ঈশ্বরদীতে গৃহবধু হত্যা ॥ জড়িতদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন নিহত যুবলীগ নেতা খায়রুল হত্যার বিচার ও খুনিদের ফাঁসির দাবিতে হাজারো নারী পুরুষের বিশাল বিক্ষোভ মিছিল-মানববন্ধন সংবাদ সম্মেলনে দাবি ফিরোজকে গ্রেপ্তার ষড়যন্ত্রমূলক ও অনাকাঙ্খিত
শিরোনাম :
রূপপুর-বগুড়া গ্রিড লাইনে পরীক্ষামূলক বিদ্যুৎ সঞ্চালন শুরু ঈশ্বরদীতে চলতি মৌসুমে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৩.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস ঈশ্বরদীতে ইজিবাইক চালকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার ঈশ্বরদী বাজারে গ্রীল কেটে ও তালা ভেঙে চার দোকানে চুরি ঈশ্বরদীতে ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটে ক্ষুদ্ধ গ্রাহক “গ্রামে বিদ্যুৎ যায় না আসে” ঈশ্বরদীতে ট্রেনে কাটা পড়ে যুবকের মৃত্যু মাদার তেরেসা গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড পেলেন গোপাল অধিকারী ঈশ্বরদীতে গৃহবধু হত্যা ॥ জড়িতদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন নিহত যুবলীগ নেতা খায়রুল হত্যার বিচার ও খুনিদের ফাঁসির দাবিতে হাজারো নারী পুরুষের বিশাল বিক্ষোভ মিছিল-মানববন্ধন সংবাদ সম্মেলনে দাবি ফিরোজকে গ্রেপ্তার ষড়যন্ত্রমূলক ও অনাকাঙ্খিত

 

রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের সুবাদে উত্তরবঙ্গের মানুষ বেশি উপকৃত হবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

সকাল প্রতিবেদক
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২২
  • ১২৩ বার

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে উত্তরবঙ্গের মানুষ সবচেয়ে বেশি উপকৃত হবে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে উৎপাদিত বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রীডে সংযুক্তির মাধ্যমে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ এর চাহিদা পুরণের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের মঙ্গাপীড়িত এলাকায় নতুন নতুন শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের মাধ্যমে সার্বিক উন্নয়ন তরান্বিত করা হবে। বুধবার সকালে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের রিঅ্যাক্টর প্রেসার ভেসেল স্থাপন অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের লক্ষ্য ছিল যে, সবার জন্য আমরা বিদ্যুৎ দেবো। বাংলাদেশের প্রত্যেক ঘরে ঘরে আমরা বিদ্যুৎ পৌছে দিয়ে আমরা কথা রেখেছি। বিদ্যুৎ উৎপাদনের মাধ্যমে আমরা বাংলাদেশকে আলোকিত করতে পেরেছি।
তিনি বলেন, বিদ্যুৎ ব্যবহারে আমাদের কিছু সাশ্রয়ী হতে হচ্ছে, তার মানে এই না যে দেশের মানুষ বিদ্যুৎ পাবে না। মানুষ বিদ্যুৎ পাচ্ছে, পাবে। তবে বর্তমান বিশ্বে যে সমস্যাটা দেখা দিয়েছে, যুদ্ধাবস্থা, তার ওপর কোভিড এবং সমস্ত পরিবহন ব্যবস্থা থেকে শুরু করে মূল্যস্ফীতি; যার ফলে এখন উন্নত দেশগুলো হিমশিম খাচ্ছে। তারাও প্রতিটি ক্ষেত্রে সাশ্রয়ের দিকে নজর দিয়েছে। আমরাও বাংলাদেশ সেদিক থেকে পিছিয়ে নেই। কারণ পৃথিবীটা এখন হচ্ছে একটা গ্লোবাল ভিলেজ। একে অপরের ওপর নির্ভরশীল। সে কারণে সারা বিশ্বে যখন অর্থনৈতিক মন্দা দেখা দেয়, তার ধাক্কাটা কিন্তু আমাদের ওপরও এসে পড়ে। তাই আমাদের কিছু সাশ্রয়ী হতে হচ্ছে। এখানে সবাইকে একটু মিতব্যয়ী হতে হবে।
তিনি আরও বলেন, কিছু কিছু ক্ষেত্রে আমাদের মিতব্যয়ী হতে হচ্ছে। আমরা বাধ্য হচ্ছি বর্তমান পরিস্থিতির কারণে। কারণ যে যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে, তার ওপর স্যানকশন, এই স্যানকশন দেওয়ার ফলে আরও বেশি সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। আমি আশা করি, পৃথিবী এ রকম একটা অবস্থা থেকে খুব দ্রুত মুক্তি পাবে।
আমরা চাই, আমাদের দেশের মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নতি। সে জন্য আমরা যেমন একদিকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে সেটা গ্রাম পর্যায়ে পৌঁছে দিচ্ছি। পাশাপাশি আমরা যোগাযোগ ব্যবস্থারও উন্নয়ন করছি। বিশেষ করে রূপপুর পাওয়ার প্রজেক্ট থেকে যে বিদ্যুৎ আসবে, আমাদের উত্তরবঙ্গের মানুষ; যেখানে চিরদিন মঙ্গা-দুর্ভিক্ষ লেগে থাকতো। এই যে আশ্বিন-কার্তিক মাস এলেই সেখানে দুর্ভিক্ষ হতো। এখন সেগুলো আমরা দুর্ভিক্ষমুক্ত করতে পেরেছি। কিন্তু তাদের কর্মসংস্থানের জন্য এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র যখন বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে তখন সেখানে মানুষের আরও সুযোগ সৃষ্টি হবে তাদের কর্মসংস্থানের। আর্থ-সামাজিক আরও উন্নতি হবে। এটা হলো বাস্তবতা। আর সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমরা এ কাজগুলো করে যাচ্ছি।
তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের মানুষ যে পারে; জাতির পিতা তার ৭ মার্চের ভাষণে বলেছিলেন, ‘কেউ দাবায় রাখতে পারবা না’। আসলে বাঙালিকে কেউ দাবায় রাখতে পারেনি, পারবেও না। যেখানে সারা বিশ্বে এখন আপনারা দেখবেন, অনেক উন্নত দেশ, সেখানে মানুষের খাদ্যের জন্য হাহাকার শুরু হয়ে গেছে। বাংলাদেশে এখনো কিন্তু সে পরিস্থিতি হয়নি। আমরা কিন্তু মানুষকে খাদ্য নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছি। আমরা সাবসিডি দিয়েও ১ কোটি মানুষের জন্য বিশেষ কার্ড করে তাদের ন্যায্য মূল্যে খাবার কেনার সুযোগ করে দিচ্ছি। যারা একেবারে কিনতে পারে না তাদের বিনা পয়সায় খাদ্য দিচ্ছি। আমরা যেমন কোভিড মোকাবিলা করেছি আর এ পরিস্থিতি আমরা মোকাবিলা করতে পারবো। সেখানে যে যা-ই বলুক না কেন! অনেকে সমালোচনা করবে সেটা আমরা জানি। ওদিকে কান দিলে চলবে না। আমরা আমাদের যে দায়িত্ব দেশের প্রতি, জনগণের প্রতি যে দায়িত্বটা আমরা পালন করে যাব।
২০২৩ সালের মধ্যে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিট চালু হবে প্রত্যাশা ব্যক্ত করে তিনি বলেন, এই বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর কাজ প্রায় শেষ হয়ে এসেছে। হয়তো ২০২৩ সালের মধ্যেই প্রথম যে ইউনিট সেখান থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ সম্ভব হবে। ২০২৪ সালের মধ্যে দ্বিতীয় ইউনিটও চালু হওয়ার আশা রাখি। পরামাণু শক্তি থেকে যে বিদ্যুৎ আসবে; এখন যেমন জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে সবাই উদ্বিগ্ন, আমাদের কিন্তু এ ব্যাপারে কোনো রকম ইমিশন হবে না। কোনো রকম পরিবেশের ওপর প্রভাব পড়বে না। সম্পূর্ণ পরিবেশবান্ধব বিদ্যুৎ উৎপাদন করে আমরা মানুষকে দিতে পারবো। আমরা এখনো আমাদের দেশটাকে জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত থেকে রক্ষা করে চলছি কিন্তু পরামাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে যে বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে সেটা অত্যন্ত পরিবেশবান্ধব হবে। এটা আমাদের দেশে কোনো রকম ক্ষতিই করবে না। বরং আমাদের দেশের মানুষ খুব স্বচ্ছ একটা বিদ্যুৎ পাবে। যে বিদ্যুৎ তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদান রেখে যাবে। প্রথম ইউনিটে ১ হাজার ২০০ এবং দ্বিতীয় ইউনিট মিলে প্রায় ২ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা অর্জন করবে। সেটাও আমাদের জন্য কম কথা নয়। এত বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে যা আমাদের দেশের দারিদ্র্যমুক্তি, মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নতিতে বিরাট অবদান রেখে যাবে। কোন প্রকার ঝামেলা ছাড়াই রূপপুরে পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাওয়ায় ঈশ্বরদীর মানুষকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমানের সভাপতিত্বে রূপপুর প্রকল্পে আয়োজিত অনুষ্ঠানে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি করর্পোরেশন রোসাটমের মহাপরিচালক অ্যালেক্সি লিখাচেভ ও বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রাণালয়ের সিনিয়র সচিব জিয়াউল হাসান বক্তব্য দেন। এছাড়াও অনুষ্ঠানে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আ ফ ম রুহুল হক, কৃষি মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মকবুল হোসেন, পাবনা-৪ (ঈশ্বরদী-আটঘড়িয়া) আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব নুরুজ্জামান বিশ্বাস, ঈশ্বরদী পৌরসভার মেয়র মোঃ ইসাহক আলী মালিথা ও ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার পি এম ইমরুল কায়েস সহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..